বিস্তারিত

  • হোম
  • |
  • তামিমার গর্ভের সন্তান কার? নাসিরের না কি রাকিবের ?
thumb
তামিমার গর্ভের সন্তান কার? নাসিরের না কি রাকিবের ?
  • 12/22/2021 6:32:39 PM
  • মো: মোস্তাফিজার রহমান
  • 0 - Comments

বিচ্ছেদের আগেই আইনসম্মতভাবে নতুন করে করা বিয়ের মামলায় গতকাল জামিন আবেদন মঞ্জুর করেছেন আদালত বর্তমানের বহুল আলোচিত ক্রিকেটার নাসির হোসেন এবং সৌদি এয়ারলাইনসের কেবিন ক্রু তামিমা সুলতানা তাম্মীসহ আরো একজনের। তবে ওই মামলার শুনানিতে নাসিরের স্ত্রী তাম্মি ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা বলে দাবি করেছেন তিনি।  তিনি বলেন যে তার গর্ভে থাকা সন্তান ক্রিকেটার নাসির হোসেনের ঔরসজাত সন্তান। অপরদিকে তামিমার সাবেক  হাসবেন্ড রাকিব হাসান তামিমা এখনও তার স্ত্রী বলে আসছেন  এবং তাদের এক কন্যাসন্তান রয়েছে  তুবা মণি নামের।

এই পরিস্থিতিতে তার সাবেক স্বামী  রাকিব প্রশ্ন তুলছেন যে,  তামিমা এখনও তার  স্ত্রী। বিগত ১০ মাস তারা একসঙ্গে একান্তে সময় কাটেনি কিন্তু এমন পরিস্থিতিতে কেমন করে তামিমা গর্ভবতী হলো? এসময় রাকিব আরো দাবি করে যে, ক্রিকেটার নাসিরের সঙ্গে তামিমার বিয়ে অবৈধ।

তামিমা নিজ সন্তান তুবা মনিকে কষ্ট দিচ্ছে বলে এসময় রাকিব মন্তব্য করে।

রাকিব নিজেকে সত্য দাবি করে বলেন যে, তিনি আদালতের কাছে প্রত্যাশা করেন  আদালত নিশ্চই তাকে ন্যায় বিচার উপহার দেবেন এবং  সেইসাথে তার  স্ত্রী তামিমাকে তার  কাছে ফেরত দেবে আদালত। তবে তিনি তামিমার গর্ভে থাকা সন্তানের দায়-দায়িত্ব নেবেন না বলে জানান এসময়।  ডিএনএ পরীক্ষা করার মাধ্যমে যদি প্রমাণ হয় যে তামিমার গর্ভের ওই সন্তান নাসিরের, তাহলে ওই সন্তান নাসিরের কাছেই ফেরত দেওয়া হবে।

 

টাকা ছাড়া ঘোরে না যাদের চাকা

 

ঢাকা টু চট্টগ্রাম মহাসড়ক সংলঙ্গ নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জ এর অন্তর্গত শিমড়াইল মোড় এলাকায়  ফিটনেসবিহীন ও লক্কর-ঝক্কর টাইপের পরিবহন প্রতিনিয়ত চলাচল করছে রোড পারমিট ছাড়াই। প্রতিমাসে হাইওয়ে পুলিশকে  মোটা অংকের উৎকোচ দিয়ে ভালো ফিটনেস ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র না থাকলেও পরিবহনগুলো মহাসড়ক দাপিয়ে বেড়াচ্ছে।

এলাকার পরিবহন মালিক, শ্রমিক-চালকদের দাবি, উৎকোচ না দিলে কোনোভাবেই ঘোরে না তাদের এইসব  পরিবহনের চাকা। প্রতিনিয়ত নানা অপকর্মও চলছে এসকল গাড়িতে। সম্প্রতি সময়ে 'যুব কল্যাণ পরিবহন' নামের একটি গাড়িতে এক নারীকে পরিবহন শ্রমিক দ্বারা জোরপূর্বক একটি ধর্ষণের ঘটনায় ওই এলাকা জুড়ে শুরু হয়েছে তোলপাড়। উক্ত ঘটনায় পুলিশ আটক করে তিন ধর্ষককে।  

মহাসড়কে প্রতিনিয়ত চলাচল করা এসব ফিটনেসবিহীন পরিবহনগুলোর মালিকপক্ষ , চালক , কর্মচারী  এবং  হেলপাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, রাজধানীতে  প্রবেশপথ ঢাকা টু চট্টগ্রাম মহাসড়কের কিছু উল্লিখিত জায়গা যেমন,  সাইনবোর্ড, শিমড়াইল মোড়, কাঁচপুরের প্রায় দেড়শতাধিক এসকল পরিবহনের কাউন্টার থেকে মাসপ্রতি পরিবহন আকার ভেদে ৫-১০ হাজার করে টাকা তোলা করা হয়। এসব টাকা ট্রাফিক পুলিশের নামে উত্তলোন করা হয় বলে জানা গেছে।

এছাড়াও  মহাসড়কে চলাচল করা নিষিদ্ধ অটোরিকশা,  সিএনজি,  লেগুনা, করিমন,  নসিমনসহ বিভিন্ন পরিবহনের কাছ থেকে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে মাসিক হারে নিয়মিত নির্দিষ্ট পরিমান চাঁদা উত্তোলন করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে গাজীপুর রিজিয়ন -হাইওয়ে পুলিশের পুলিশ সুপার আলী আহম্মদ খাঁন বলেন যে , কোনো গণপরিবহন থেকে চাঁদা নেওয়ার সাথে কোনো হাইওয়ে পুলিশ

জড়িত থাকলে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে তাদের বিরুদ্ধে। তাদের কোনো অবস্থাতেই ছাড় দেওয়া হবে না।

আপনার মন্তব্যঃ

একই ধরনের সংবাদ

আপনার জন্য